করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত ভুল তথ্য বিষয়ে ইউনিসেফের অংশীদারিত্ব বিষয়ক উপ নির্বাহী পরিচালক শার্লট পেত্রি গোর্নিৎজকার বিবৃতি

08 মার্চ 2020

নিউইয়র্ক, ৮  মার্চ ২০২০ – “বিশ্বজুড়ে মানুষ নিজেদের এবং তাদের পরিবারকে করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা করার জন্য প্রয়োজনীয় সাবধানতা অবলম্বন করছে। এ মুহূর্তে যা প্রয়োজন তা হচ্ছে বৈজ্ঞানিক প্রমাণের ভিত্তিতে যথাযথ প্রস্তুতি।”

“যদিও অনেকে ভাইরাস এবং এর বিরুদ্ধে কীভাবে সুরক্ষিত থাকা যাবে সে সম্পর্কিত তথ্য শেয়ার করছেন, তবে এই তথ্যের মধ্যে সামান্যই উপকারী বা নির্ভরযোগ্য। স্বাস্থ্যজনিত সংকটের সময়ে ভুল তথ্য আতঙ্ক ও ভয় ছড়িয়ে দিতে পারে। এর ফলে মানুষ ভাইরাস থেকে অরক্ষিত থেকে যেতে পারে অথবা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আরও বেশী ঝুঁকিতে পড়তে পারে।”

“উদাহরণস্বরূপ, ইউনিসেফের সঙ্গে সম্পর্কিত দাবি করে সম্প্রতি বিশ্বজুড়ে বেশ কয়েকটি ভাষায় ছড়িয়ে পড়া একটি ভ্রান্ত অনলাইন বার্তায় অন্যান্য কিছু বিষয়ের সঙ্গে এটাও নির্দেশ করা হয় যে, আইসক্রিম এবং অন্যান্য ঠান্ডা খাবার এড়িয়ে চললে তা এই রোগ ঠেকাতে সহায়ক হতে পারে। এটি অবশ্যই, পুরোপুরি অসত্য।”

“এই ধরনের মিথ্যাচার যারা সৃষ্টি করছেন তাদের প্রতি আমাদের সহজ একটি বার্তা হলো, থামুন। ভুল তথ্য শেয়ার করা এবং আস্থাভাজন অবস্থানে থাকা কারও নামের অপব্যবহার করে কর্তৃত্বের সঙ্গে এটাকে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা বিপজ্জনক ও ভুল।”

“জনসাধারণের প্রতি আমাদের অনুরোধ, আপনাকে ও আপনার পরিবারকে কীভাবে নিরাপদ রাখতে হবে সে সম্পর্কিত সঠিক তথ্য ইউনিসেফ বা ডব্লিউএইচও, সরকারি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও বিশ্বস্ত স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের মতো যাচাইকৃত উৎস থেকে অনুসন্ধান করুন। অবিশ্বস্ত বা যাচাইকৃত নয়– এমন উৎস থেকে তথ্য শেয়ার করা থেকে বিরত থাকুন।”

“আপনাকে এবং আপনার প্রিয়জনদের কীভাবে নিরাপদে রাখতে হবে সে সম্পর্কিত জ্ঞানের জন্য ঠিক কোথায় যেতে হবে তা জানা আজকের তথ্য-সমৃদ্ধ সমাজে কঠিন হতে পারে। তবে আমরা নিজেদের এবং আমাদের প্রিয়জনদের সুরক্ষিত রাখার জন্য যে ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করি, তথ্য শেয়ার করার ক্ষেত্রেও এর সত্যতা সম্পর্কে আমাদের ঠিক সেই ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।”

“সঠিক তথ্য ও উপদেশ প্রাপ্তি নিশ্চিত করার পাশাপাশি অসত্য তথ্য ছড়িয়ে পড়ার সময় জনসাধারণকে সে সম্পর্কে অবহিত করার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, সরকারি কর্তৃপক্ষ এবং ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, লিংকডইন ও টিকটকের মতো অনলাইন অংশীদারদের সঙ্গে কাজ করার মাধ্যমে ইউনিসেফ ভাইরাস সম্পর্কে যথাযথ তথ্য প্রদানে সক্রিয়ভাবে পদক্ষেপ নিচ্ছে।”

গণমাধ্যম বিষয়ক যোগাযোগ

কুর্টিস কুপার
ইউনিসেফ নিউইয়র্ক
টেলিফোন: +1 917 476 1435
ই-মেইল: kacooper@unicef.org
ক্রিস্টোফার টাইডে
ইউনিসেফ নিউইয়র্ক
টেলিফোন: +1 917 340 3017
ই-মেইল: ctidey@unicef.org

ইউনিসেফ সম্পর্কে

প্রতিটি শিশুর অধিকার ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করতে বিশ্বের ১৯০ টি দেশে কাজ করছে ইউনিসেফ। সকল বঞ্চিত শিশুদের পাশে থাকার অঙ্গীকার নিয়ে আমরা কাজ করি বিশ্বের বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে।

আমাদের কাজ সম্পর্কে আরো জানতে ভিজিট করুন: www.unicef.org.bd

ইউনিসেফের সাথে থাকুন: ফেসবুক এবং টুইটার