‘ইউনিসেফ মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’ বিজয়ীরা বাংলাদেশে শিশু অধিকার বিষয়ে আলোকপাত করেছেন

20 ডিসেম্বর 2021
A girl and a boy talking
UNICEF/UN0568673
ইউনিসেফ মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডস আজ, ২০২১ সালে বাংলাদেশে শিশু অধিকার নিয়ে প্রতিবেদন করায় সাংবাদিকদের সম্মানিত করেছে। অনুষ্ঠানে শিশু সাংবাদিকদের প্রতিবেদনকেও পুরস্কৃত করা হয়।

ঢাকা, ২০ ডিসেম্বর ২০২১ ইউনিসেফ মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডস আজ, ২০২১ সালে বাংলাদেশে শিশু অধিকার নিয়ে প্রতিবেদন করায় সাংবাদিকদের সম্মানিত করেছে। অনুষ্ঠানে শিশু সাংবাদিকদের প্রতিবেদনকেও পুরস্কৃত করা হয়। ২০০৫ সালে ইউনিসেফের চালু করা মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডস সাংবাদিকতার উৎকর্ষতাকে স্বীকৃতি দিয়ে থাকে, যা শিশুদের বাস্তবতাকে তুলে ধরে।

বাংলাদেশে ইউনিসেফের প্রতিনিধি মি. শেলডন ইয়েট বলেন, “গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর প্রতি জনসাধারণের মনোযোগ আকর্ষণে এবং শিশুদের জীবনমান উন্নয়নে নীতি-নির্ধারকদের জবাবদিহিতার সম্মুখীন করতে গণমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ইউনিসেফ মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডস শিশু সাংবাদিকদের প্রতিবেদনকেও স্বীকৃতি দেয়, যা আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে, শিশুদের জীবনকে প্রত্যক্ষভাবে প্রভাবিত করে এমন সব বিষয়ে শিশুদেরকে সরাসরি কথা বলার সুযোগ করে দেওয়াটা কতখানি গুরুত্বপূর্ণ।“

অনুষ্ঠানে ইউনিসেফের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী এবং বিশ্বের শিশুদের জন্য অর্জিত অগ্রগতি উদযাপনের পাশাপাশি যেসব কাজ এখনও বাকি আছে সেগুলোও তুলে ধরা হয়েছে। চলমান মহামারী বাংলাদেশে শিশুদের অসমভাবে প্রভাবিত করেছে। স্কুল বন্ধ থাকার কারণে তাদের পড়াশোনা ব্যাহত হয়েছে এবং এটি তাদেরকে শিশুবিয়ে, শিশুশ্রম ও সহিংসতার ঝুঁকিতে ফেলেছে। একই সময়ে, জলবায়ু পরিবর্তন তাদের ভবিষ্যতকে অব্যাহতভাবে হুমকির মুখে ফেলছে।

তবে আরও উন্নত ভবিষ্যতের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণে একত্রে কাজ করার মাধ্যমে এই চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করা যেতে পারে। বাংলাদেশের অগ্রগতির কেন্দ্রে শিশুদের রাখার জন্য সরকার ও গণমাধ্যমসহ অন্যান্য অংশীদারদের সঙ্গে অংশীদারিত্ব গুরুত্বপূর্ণ।

এই বছরের মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড বিজয়ীরা যে গল্পগুলোর অবতারণা করেছেন তার মধ্যে রয়েছে কোভিড-১৯ এর কারণে অনাথ হওয়া শিশুদের কথা, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের সঙ্গে বসবাসকারী শিশুদের এবং পড়াশোনা থেকে বাদ পড়া শিশুদের কথা। তবে দারিদ্র্য, শিশুশ্রম ও শিশুবিয়ের কবলে পড়া শিশুদের ঘুরে দাঁড়ানোর অপ্রতিরোধ্য ও সাহসী গল্পও বর্ণিত হয়েছে। এটি বাংলাদেশি শিশু এবং রোহিঙ্গা শরণার্থী শিশু – উভয়ের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য।

অভিজ্ঞ গণমাধ্যমকর্মী ও শিক্ষাবিদসহ স্বাধীন বিচারকদের একটি প্যানেল প্রায় ৭০০ প্রতিযোগীর মধ্য থেকে বিজয়ীদের নির্বাচন করে।

এ বছরের আয়োজনে বিচারকদের একজন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস বলেন, “আমি মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডের বিজয়ী এবং অংশগ্রহণকারীদেরকে অভিনন্দন জানাই। এই বছর অনেক শক্তিশালী প্রতিবেদন জমা পরেছিল এবং আগামী দিনগুলোতে আমরা আরও বেশি শিশু-সংবেদনশীল, নৈতিকতা সমৃদ্ধ রিপোর্টিং দেখতে পাবো বলে আশা রাখি।”

পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানের জনপ্রিয় বাংলাদেশি গায়িকা পড়শী ইউনিসেফ নির্মিত মীনা অ্যানিমেটেড সিরিজের থিম সং গেয়ে শোনান। ‘মীনা’ দক্ষিণ এশিয়াজুড়ে একটি প্রিয় চরিত্র, যে ১৯৯৩ সাল থেকে আজ অবধি বাংলাদেশে এবং দেশের বাইরে শিশুদের অধিকারের পক্ষে কথা বলে আসছে এবং বড়দের তাদের দায়িত্বের কথা স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে।

মিনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড ২০২১ এর বিজয়ীরা:

টেক্সট ক্যাটাগরিতে শিশু অধিকারকে তুলে ধরেএমন সংবাদ প্রতিবেদন এর জন্য

প্রথম পুরস্কার: কহিনুর খৈয়াম, ঢাকা ট্রিবিউন, ‘রেইপস ইন মাদ্রাসাস: ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স’ প্রতিবেদনের জন্য

দ্বিতীয় পুরস্কার: মো. খায়রুল বাশার আশিক, এনটিভি, ‘নৌকায় জন্ম, নৌকায় বেড়ে ওঠা’ প্রতিবেদনের জন্য

তৃতীয় পুরস্কার: মো. বনি আমিন, নিউজবাংলা টোয়েন্টফোর ডটকম, ‘পাচারের ঘাটে ঘাটে ধর্ষণ, বিক্রি হচ্ছে সন্তানও’ প্রতিবেদনের জন্য এবং উম্মে মারজানা জুই, দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড, ‘হাউ ক্লাইমেট চেঞ্জ ইজ আন্ডারমাইনিং এডুকেশন ইন কোস্টাল এরিয়াস অব বাংলাদেশ’ প্রতিবেদনের জন্য।

ফটোগ্রাফি ক্যাটাগরিতে শিশু অধিকারকে তুলে ধরে এমন ফটোসাংবাদিকতার জন্য

প্রথম পুরস্কার: ইমরান হোসেন, দৈনিক অধিকার, কোভিড-১৯ এর সময়ে শিশুশ্রম বিষয়ক ছবির জন্য

দ্বিতীয় পুরস্কার: দীপু মালাকার, প্রথম আলো, দারিদ্র্য বিষয়ক ছবির জন্য

তৃতীয় পুরস্কার: মো. সাজিদ হোসেন, প্রথম আলো, দারিদ্র্য বিষয়ক ছবির জন্য

বিশেষ পুরস্কার: প্রবীর দাস, দ্য ডেইলি স্টার, শিশুদের বিরুদ্ধে সহিংসতা বিষয়ক ছবির জন্য

ভিডিও ক্যাটাগরিতে শিশু অধিকারকে তুলে ধরে এমন সংবাদ প্রতিবেদন এর জন্য

প্রথম পুরস্কার: নাদিয়া শারমিন, একাত্তর টিভি, ‘বাড়ছে ছেলে শিশু ধর্ষণের সংখ্যা’ প্রতিবেদনের জন্য

দ্বিতীয় পুরস্কার: মারজিয়া হাশমি মম, সময় টিভি, ‘স্কুল থেকে ঝরে পড়লো ১০ লাখ ৭০ হাজার শিশু!’ প্রতিবেদনের জন্য

তৃতীয় পুরস্কার: ইসমাইল হোসেন জুয়েল, জিটিভি, ‘ই-বর্জ্যে শিশু স্বাস্থ্যের ঝুঁকি’ প্রতিবেদনে জন্য

বিশেষ মিনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড টেক্সটভিত্তিক ক্যাটাগরিতে শিশু অধিকারকে তুলে ধরে এমন সংবাদ প্রতিবেদন এর জন্য:

শিশুদের ওপর কোভিড-১৯ এর প্রভাব

মো. সামসুর রহমান, প্রথম আলো, ‘করোনায় এতিম হয়েছে সাড়ে ৩ হাজার শিশু’ প্রতিবেদনের জন্য

শিশুদের জন্য গণবিনিয়োগ

নিলিমা জাহান, দ্য ডেইলি স্টার, ‘এন্ডিং হ্যাজারডাস চাইল্ড লেবার বিপজ্জনক শিশুশ্রমের অবসান’ প্রতিবেদনের জন্য

রোহিঙ্গা শরণার্থী শিশুরা

আদনান রহমান, ঢাকা পোস্ট, ‘ওদের শৈশব কাটে ভয়-আতঙ্ক আর অনিশ্চয়তায়’ প্রতিবেদনের জন্য

শিশুবিয়ের অবসান

জসিম উদ্দিন, ঢাকা পোস্ট, ‘নিরাপত্তা অজুহাত, আইনের ফাঁক বাড়াচ্ছে বাল্যবিয়ে’ প্রতিবেদনের জন্য

জলবায়ু পরিবর্তন ও শিশুরা

মো. শাহেদুল ইসলাম, বাংলা ট্রিবিউন, ‘ডিএসসিসির জলবায়ু আশ্রয়কেন্দ্রে নেই উদ্বাস্তু, আছে কাউন্সিলরের কার্যালয়!’ প্রতিবেদনের জন্য

শিশুদের মিনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড ২০২১ এর বিজয়ীরা:

টেক্সট ক্যাটাগরিতে শিশু অধিকারকে তুলে ধরেএমন সংবাদ প্রতিবেদন এর জন্য শিশুদের মিনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড (১৮ বছরের নিচে)

প্রথম পুরস্কার: রাফসান নিঝুম, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, ‘বর্ণবাদমুক্ত পৃথিবীতে পরিচয় হোক ‘মানুষ’ হিসেবে!’ প্রতিবেদনের জন্য

দ্বিতীয় পুরস্কার: মো. সাজ্জাদুর রহমান, প্রথম আলো, ‘”স্কুল কি আমগো লাইগা নাকি”’ প্রতিবেদনের জন্য

তৃতীয় পুরস্কার: পিয়াল সাহা, আজকের গোপালগঞ্জ, “আমাদের দেশে হবে সেই মিনা কবে?” প্রতিবেদনের জন্য

ভিডিও ক্যাটাগরিতেশিশু অধিকারকে তুলে ধরে এমন সংবাদ প্রতিবেদনএর জন্য শিশুদের মিনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড (১৮ বছরের নিচে)

প্রথম পুরস্কার: আফরিন আক্তার, এটিএন বাংলা, ‘প্রতিনিয়ত কমছে অক্সিজেনের মাত্রা’ প্রতিবেদনের জন্য

দ্বিতীয় পুরস্কার: ফাহমিদা ফাইজা স্বর্গ, এটিএন বাংলা, ‘করোনার কাছে অসহায় শিশুরা’ প্রতিবেদনের জন্য

তৃতীয় পুরস্কার: তাহমিনা ফ্লোরা, এটিএন বাংলা, ‘করোনার মধ্যে সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পাচ্ছে শিশুদের মাঝে’ প্রতিবেদনের জন্য

মিনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড ২০২১ এর বিচারকগণ

এবিএম রফিকুর রহমান, ভিডিও সাংবাদিক, রয়টার্স টিভি

আবু নাসের সিদ্দিক, পুরস্কারপ্রাপ্ত আলোকচিত্রী

গীতি আরা নাসরিন, অধ্যাপক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

জান্নাতুল মাওয়া, অধিকারকর্মী এবং পুরস্কারপ্রাপ্ত আলোকচিত্রী

মোবাশ্বিরা ফারজানা মিথিলা, অভিজ্ঞ ব্রডকাস্ট সাংবাদিক

রোবায়েত ফেরদৌস, অধ্যাপক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

রুমা পাল, প্রধান সংবাদদাতা, রয়টার্স, বাংলাদেশ

সেলিনা হোসেন, পুরস্কারপ্রাপ্ত ঔপন্যাসিক

শাহনূর ওয়াহিদ, অভিজ্ঞ সাংবাদিক ও শিক্ষক

###

সম্পাদকদের জন্য নোট

ছবি ডাউনলোক করা যাবে এখান থেকে

 

গণমাধ্যম বিষয়ক যোগাযোগ

ফারিয়া সেলিম
ইউনিসেফ বাংলাদেশ
টেলিফোন: +8809604107077
ই-মেইল: fselim@unicef.org

ইউনিসেফ সম্পর্কে

বিশ্বের সবচেয়ে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কাছে পৌঁছাতে বিশ্বের কঠিনতম কিছু স্থানে কাজ করে ইউনিসেফ। ১৯০টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে সর্বত্র সব শিশুর জন্য আরও ভালো একটি পৃথিবী গড়ে তুলতে আমরা কাজ করি।

ইউনিসেফ এবং শিশুদের জন্য এর কাজ সম্পর্কিত আরও তথ্যের জন্য ভিজিট করুন: www.unicef.org

ইউনিসেফকে অনুসরণ করুন Twitter, Facebook, InstagramYouTube-এ।