ইউনিসেফ: ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইনের আওতায় ২ কোটি ৮ লাখ শিশুকে টিকা দেওয়া হয়েছে, যা বাংলাদেশের জন্য বিজয়

23 ডিসেম্বর 2020
A health volunteer gives a child a polio vaccine.
UNICEF/UN0353782/Paul
জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইনের (এনভিএসি+) আওতায় ঢাকায় একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভিটামিন এ সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করছে এক কন্যাশিশু।

ঢাকা, ২৩ ডিসেম্বর ২০২০: জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন ৬ মাস থেকে ৫ বছর বয়সী ২ কোটি ৮ লাখ শিশুর কাছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর গুরুত্বপূর্ণ পরিপূরক  নিয়ে পৌঁছেছে । কোভিড-১৯ এর কারণে উদ্ভূত চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও অক্টোবরে অনুষ্ঠিত দুই সপ্তাহের এই ক্যাম্পেইনে লক্ষ্যমাত্রার ৯৭ শতাংশ পূরণ হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, জাতীয় পুষ্টি সেবা এবং জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠান ২০২০ সালের ১৪ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে এই ক্যাম্পইনের আওতায় টিকা প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করে এ সম্পর্কিত তথ্য প্রকাশ করে।

বাংলাদেশে ইউনিসেফের প্রতিনিধি টোমো হোযুমি  বলেন, “এটি বাংলাদেশের শিশুদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিজয়। বিস্তৃত পরিসরে টিকাদানের পাশাপাশি স্বাস্থ্যকর্মী, শিশু ও তাদের বাবা-মায়েদের সুরক্ষা নিশ্চিতের লক্ষ্যে এই ক্যাম্পেইন গৃহীত হয়।

ইউনিসেফের সহায়তায় বাংলাদেশ সরকার ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইনটি পরিচালনা করে, যা কোভিড-১৯ এর প্রেক্ষাপটে নিরাপদে টিকাদান কার্যক্রম পরিচালনা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নির্দেশনা ও যোগাযোগ উপকরণ তৈরিতে সহায়তা দেয়। এছাড়াও ইউনিসেফ স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবীদের জন্য ৩ লাখ ৬০ হাজার মাস্ক সরবরাহ করে।

বড় ধরনের জমায়েত এড়ানোর লক্ষ্যে এ বছরের ক্যাম্পেইনটি একদিনের পরিবর্তে ১২ দিন ধরে পরিচালনা করা হয়। ১ লাখ ২০ হাজারেরও বেশি বিতরণ কেন্দ্রের মাধ্যমে ক্যাম্পেইনটি পরিচালিত হয়, যেখানে বাবা-মা ও শিশুদের জন্য যথাযথভাবে মাস্ক পরিধান করা, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং হাত ধোয়ার সুবিধা নিশ্চিত করাসহ সংক্রমণ প্রতিরোধ নিয়ন্ত্রণে যথাযথ ব্যবস্থা নিশ্চিত করে স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকরা সেবা প্রদান করেন।

সরকার প্রচারণা কার্যক্রমের বিষয়ে রিপোর্ট দেওয়ার জন্য মোবাইল ফোন ব্যবহার করে জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইনের জন্য রিয়েল-টাইম মনিটরিং ও রিপোর্টিংকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছে। ক্যাম্পেইন চলাকালে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী সবাইকে টিকা দেওয়া হচ্ছে কি-না তা জানতে, বিশ্লেষণ করতে এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো শেয়ারের জন্য প্রতিদিন ১ হাজার ৪৫০ জনেরও বেশি পর্যবেক্ষক ১৪ হাজার বিতরণ কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। তাৎক্ষণিক চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় এবং টিকা প্রদানের আওতা বাড়াতে এসব তথ্য ব্যবহৃত হয়। কোন একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে জরুরি সরবরাহে ঘাটতি দেখা দিলে সেক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সরবরাহগুলো জরুরি ভিত্তিতে নিকটস্থ আরেকটি কেন্দ্র থেকে পাঠানোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

অপুষ্টি হ্রাসে গত দুই দশকের জাতীয় অগ্রগতিকে হুমকির মুখে ফেলে কোভিড-১৯ মহামারি জীবন ও জীবিকার ওপর প্রভাব বিস্তার অব্যাহত রেখেছে, যেখানে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশু এবং প্রজননক্ষম নারীরা সবচেয়ে ঝুঁকিতে রয়েছে। শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে এবং সংক্রমণের প্রতি সংবেদনশীলতা কমাতে ভিটামিন এ গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলাদেশে ইউনিসেফের প্রতিনিধি টোমো হোযুমি  বলেন, “বাবা-মায়েরা যাতে তাদের শিশুদের জন্য পুষ্টি সেবা গ্রহণ অব্যাহত রাখতে পারে তা নিশ্চিত করতে ইউনিসেফ বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। কষ্টার্জিত অর্জনগুলো যাতে পূর্বাবস্থায় ফিরে না যায় এবং কোনো শিশু যাতে পেছনে পড়ে না থাকে তা নিশ্চিত করতে আমাদের অবশ্যই জোরালো পদক্ষেপ নিতে হবে।”

###

সম্পাদকদের জন্য দ্রষ্টব্য:

জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন (এনভিএসি +) ২০২০ সালের ৪ থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ সরকার সাধারণত প্রতি বছর দুটি জাতীয় ভিটামিন এ ক্যাম্পেইন পরিচালনা করে। এ বছর প্রথম ক্যাম্পেইনটি জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হয় এবং দ্বিতীয় ক্যাম্পেইনটি জুলাইতে হওয়ার কথা থাকলেও কোভিড-১৯ এর কারণে ২০২০ সালের অক্টোবর পর্যন্ত স্থগিত থাকে। 

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অপুষ্টি বিষয়ে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে, যেখানে ২০১১ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত সময়ে শিশুদের খর্বাকৃতির হার ৪১ শতাংশ থেকে কমে ৩১ শতাংশে নেমে আসে।

রিয়েল-টাইম পর্যবেক্ষণ এবং তৈরি করা প্রতিবেদন থেকে প্রাপ্ত ফলাফল প্রতিদিন একটি অনলাইন ড্যাসবোর্ডের মাধ্যমে শেয়ার করা হতো, যা পাওয়া যাবে নিচের লিংকে

 

 

গণমাধ্যম বিষয়ক যোগাযোগ

ফারিয়া সেলিম
ইউনিসেফ বাংলাদেশ
টেলিফোন: +8809604107077
ই-মেইল: fselim@unicef.org

About UNICEF

UNICEF promotes the rights and wellbeing of every child, in everything we do. Together with our partners, we work in 190 countries and territories to translate that commitment into practical action, focusing special effort on reaching the most vulnerable and excluded children, to the benefit of all children, everywhere.

For more information about UNICEF and its work for children, visit www.unicef.org.bd

Follow UNICEF on Facebook and Twitter