শিশুর সামাজিক সুরক্ষা 

কেউ যেন পেছনে পড়ে না থাকে

মারিজা, ১৫, গরু চরাচ্ছে শেরপুরের খাইলকুরা গ্রাম।
UNICEF/UNI91653/ShehabUddin

চ্যালেঞ্জ

শিশুদের জন্য নিরাপত্তা বেষ্টনীর সংহতি এবং সমন্বয় দরকার

শিশু ও নারীদের উপর নিপীড়ন কমিয়ে আনার জন্য প্রণীত নীতি ও কর্মসূচি, একটি দেশের সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থার গুরুত্বপূর্ণ ভিত্তি।

বাংলাদেশে সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থা এখনো পর্যন্ত অতিমাত্রায় বিভক্ত। সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থায় রয়েছে ১৩০টি কর্মসূচি যেগুলো বেশীরভাগ ক্ষেত্রে একটির সাথে অপরটি সংযুক্ত নয়। এসব কর্মসূচির লক্ষ্যসমূহ একটির সাথে অন্যটি মিলে যায়, এতে বাজেট কম এবং এদের আওতাও অপ্রতুল।

যেকোনো দেশের জন্য যেকোনো পরিপ্রেক্ষিত থেকেই শিশু এবং সামাজিক সুরক্ষায় বিনিয়োগ গুরুত্বপূর্ণ। শিশুদের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী মানবাধিকার ও অর্থনীতিকে রক্ষা করে।

বাংলাদেশ সরকার ইতোমধ্যেই একটি জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কৌশল অনুমোদন করেছে। এটি বিভিন্ন কর্মসূচিকে জীবন-চক্র ভিত্তিক পরিকল্পনায় একত্রিত করতে চায়। গুণগত অন্তর্ভূক্তিমূলক সেবার আওতা বৃদ্ধির জন্য আরো বিনিয়োগ ও পরিকল্পনা দরকার।

শহরের শিশুদের জন্য গৃহিত কার্যক্রমের জন্য আরো তহবিল বরাদ্দ দেয়া উচিত। বাল্যবিবাহ ও শিশুশ্রমকে মোকাবেলা করার জন্য আরো পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন

অপুষ্টি দুর করা, সেবাদাতাদের দক্ষতা ও সামর্থ্য শক্তিশালী করা এবং ২০১৩ সালে প্রণীত শিশু আইনের সাথে সামঞ্জস্য রেখে প্রতিষ্ঠানের বাইরে থাকা এতিমদের জন্য সেবার ব্যবস্থা করার বিষয়ে আরো বেশিমাত্রায় আলোকপাত করা উচিত।

জতিসংঘ শিশু সনদের (সিআরসি) ২০১৫ সালের সমাপণী পর্যবেক্ষণে সরকার কর্তৃক শিশু-বান্ধব বাজেট প্রতিষ্ঠা করাকে প্রশংসা করা হয়েছে।

যদিও, কমিটি আরো সুপারিশ করেছে যে, বাংলাদেশ সকল সামাজিক খাতে, বিশেষ করে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য, বাজেট বরাদ্দ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করুক।
যেহেতু সামাজিক খাতে ব্যয়ের মান এখনো পর্যন্ত মূল সমস্যা, সেহেতু কমিটি একটি ভালো পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়ন ব্যবস্থার সুপারিশ করেছে। 

শিশু-বান্ধব বাজেটে অবশ্যই অংশগ্রহণমূলক এবং স্বচ্ছ উন্নয়ন প্রক্রিয়া অন্তর্ভূক্ত থাকবে। শিশুদের জন্য ভালো বিনিয়োগ নিশ্চিত করতে উন্নত রাজস্ব ব্যবস্থা অর্জনের জন্য বাংলাদেশকে আরো কাজ করতে হবে। 

     

community building cyan

'শিশুর সামাজিক সুরক্ষা' ইউনিসেফ বাংলাদেশের সামাজিক অন্তর্ভুক্তি ও শিশু অধিকার বিষয়ক কার্যক্রমের আওতায় একটি অগ্রাধিকার।     


 

     

সমাধান

প্রমাণ, জ্ঞান এবং মূল্যায়ন ব্যবহারের একটি সংস্কৃতি প্রবর্তন করছে ইউনিসেফ 

শিভা বাউরি, ৫, সিলেটের মোলভিবাজারের মিরতিঙ্গা প্রি-প্রাইমারি স্কুলে ক্লাস করছে।
UNICEF/UNI135415/Mawa
ওদের মা-বাবা সিলেটের চা বাগানের শ্রমিক। দরিদ্র সংখ্যালঘু এই সম্প্রদায়ের কাছে পৌঁছে না অনেক মৌলিক সেবা। ইউনিসেফের সাহায্যে পরিচালিত মোলভিবাজারের মিরতিঙ্গা প্রি-প্রাইমারি স্কুলে ক্লাস করছে ওরা।

কর্মদক্ষতা এবং সরকার ও উন্নয়ন সংস্থার কাজের ক্রমাগত উন্নতিতে সাহায্য করে গবেষণা ও মূল্যায়ন। এছাড়াও, আদর্শ কার্যক্রম পরিমাপের মূল উপাদান হলো ভালো চর্চাগুলোকে স্বীকৃতি দেয়া ।

ইউনিসেফের মূল উপাদান হলো শিশুদের জন্য প্রাসঙ্গিক নীতি তৈরি ও উন্নত করার আলোচনাকে উৎসাহিত করা। ফ্যাক্টশীট তৈরি, সংলাপ, পরামর্শ এবং সামর্থ্যের মূল্যায়ন উন্নত করার মাধমে এই প্রচার সমর্থিত হয়।

অন্যভাবে সক্ষম শিশুসহ যত সংখ্যক শিশু সামাজিক সুরক্ষার আওতায় রয়েছে এমনকি মানসিক বা শারীরিক প্রতিবন্ধীতার শিকার, এমন শিশুদেরকেও নজরে রাখা হয়েছে। এই ব্যবস্থায় শিশুর প্রতিক্রিয়াও পরিমাপ করা হয়।

জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কৌশলের অধীন শিশু সম্পর্কিত উপাদানের বাস্তবায়ন এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের শিশুবান্ধব বাজেটের কাজ ও বাস্তবায়নকে সমর্থন দেয়া, শিশু-সংবেদনশীল সামাজিক সুরক্ষার জন্য অগ্রাধিকারমূলক কার্যক্রমের অন্তর্ভূক্ত।  

ইউনিসেফ সামাজিক সুরক্ষা এজেন্ডাকে এগিয়ে নিতে কাজ করে এবং শিশুদের পুষ্টি ও শিক্ষার ফলাফলের অগ্রগতিতে কাজ করে। এছাড়াও ইউনিসেফ ইতিবাচক সামাজিক রীতিনীতিকে জোরদার করে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রার নীতিকে অনুসরণ করে সার্বজনীন সুরক্ষার এজেন্ডাকে এগিয়ে নিতেও ইউনিসেফ কাজ করে। 

সামাজিক সুরক্ষাকে শক্তিশালী করতে, ইউনিসেফ শিশু, কিশোর-কিশোরী ও নারীদের সার্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করছে।

সরকারের সাথে সহযোগিতায়, মৌলিক স্বাস্থ্যসেবার মান ও আওতার সময়ভিত্তিক পর্যবেক্ষণে ইউনিসেফ সহযোগিতা করছে। 

মাল্টিপল ইনডিকেটর ক্লাস্টার সার্ভের (মিকস) প্রথম পাইলট দেশ হওয়ায় শিশুদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে।

২০১৯ সালে সময়োপযোগী মিকস সমীক্ষা তেরিতে ইউনিসেফ বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোকে সহযোগিতা করবে।

এছাড়াও, শিশু ও নারী সম্পর্কিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার ২৯টি সূচকের অগ্রগতি পর্যবেক্ষণে ইউনিসেফ সহযোগিতা করবে।